সর্বশেষ

» জামালগঞ্জের আলোকিত ব্যক্তি মুক্তিযোদ্ধা জমির উদ্দিন আহমদ

প্রকাশিত: 29. May. 2020 | Friday

মাস্টার জমির উদ্দিন আহমদ তালুকদার সুনামগঞ্জ জেলার জামালগঞ্জ উপজেলার ভীমখালী ইউনিয়নের ছেলাইয়া গ্রামের একজন আলোকিত ব্যক্তি।তিনি ১৩২৫ বঙ্গাব্ধে নিজ গ্রামে জন্মগ্রহন করেন। তাঁর পিতার নাম মরহুম মজিদ উল্লাহ্ তালুকদার। ছেলেবেলায় তিনি পড়াশুনায় মেধার স্বাক্ষর রাখেন।মুক্তিযোদ্ধা জমির উদ্দিন তালুকদারের প্রাথমিক শিক্ষার হাতেখড়ি হয় সুনামগঞ্জ সদরের গোবিন্দপুর গ্রামে ।তিনি ১৯৩৭ সালে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপ্ত করে গোবিন্দপুর এম.ই. স্কুলে ভর্তি হন এবং ১৯৪০ ইং সনে আসাম ‘মিডিল স্কুল লিভিং সার্টিফিকেট’ পরীক্ষায় প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হন। পরে তিনি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতায় যোগ দেন।প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন জামলাবাজ (সুনামগঞ্জ), মল্লিকপুর, হায়াতপুর ও মাহমুদপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। এ সুবাদেই তিনি জমির উদ্দিন মাস্টার নামেই ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেন। পরে তিনি শিক্ষকতা ছেড়ে নেমে পড়েন ব্যবসায় ।দীর্ঘদিন ব্যবসা করেন।জনপ্রতিনিধি হিসেবেও দায়িত্বশীল ভুমিকা পালন করেন। প্রেসিডেন্ট আইয়ূব খাঁনের আমলে তিনি ভীমখালী ইউনিয়নের বি.ডি এর সদস্য (মেম্বার ২বার) ছিলেন।১৯৭২-৭৩ সালে ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন । চেয়ারম্যান হিসেবে নিজ ইউনিয়নের শাহপুর থেকে তেরানগর পর্যন্ত রাস্তাটির তিনিই ছিলেন রূপকার এবং বাস্তবায়নকারী। লাল বাজার হতে মাহমুদপুরের দক্ষিণ পার্শ্ব দিয়ে মৌলিনগর ভায়া নোয়াগাঁও রাস্তাটি তিনিই নির্মাণ করেন। তিনি মাখড়খলা ও ভান্ডার মধ্যবর্তী স্থানে বেড়ীবাঁধ নির্মাণ করে ১৫০ একর জমিকে সুফলা করেন। সাচনা মাছ বাজারে বৃটিশ আমলে প্রতিষ্ঠিত একটি দাতব্য চিকিৎসালয় সত্ত্বেও বঙ্গবন্ধুর আমলে জামালগঞ্জ সদর হাসপাতাল নির্মাণে দায়িত্বশীল ভুমিকা পালন করেন। ৫৪ পূর্ববর্তী জামালগঞ্জ মুসলিম লীগের অন্যতম নেতা হিসেবে নেতৃত্ব দেন।জামালগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি (‘৬৮ ইং) ও সাধারণ সম্পাদক (‘৭৩ ইং) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। জামালগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের ৭৩ পরবর্তী দীর্ঘকালীন সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ৬৬’র ছয় দফা ও ‘৬৯ গনঅভ্যুত্থান এ জামালগঞ্জে নেতৃত্ব দেন।। তিনি ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়ে অন্যতম সংগঠক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।তিনি ছিলেন জামালগঞ্জ থানা মুক্তি সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক। একজন শিক্ষানুরাগী হিসেবে নিজ এলাকায় প্রতিষ্ঠা করেন আটগাঁও নিম্ন মাধ্যমিক উচ্চ বিদ্যালয়, ছেলাইয়া রেজিস্টার্ড প্রাথমিক বিদ্যালয়। মুসলিম লীগের মাধ্যমে জমির উদ্দিনের রাজনৈতিক জীবন শুরু হয়। ১৯৫৪ ইং সনে নির্বাচনের পর সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুস সামাদ আজাদের সংস্পর্শে তিনি আওয়ামী রাজনীতিতে দীক্ষিত হন। ১৯৭১ ইং সনে ১৬ই ডিসেম্বর স্বাধীনতা-উত্তর জামালগঞ্জ থানার পূণর্গঠন ও প্রশাসনিক ক্ষেত্রে তার ভূমিকা ছিলো অনস্বীকার্য। ব্যক্তিগত ভাবে তিনি ছিলেন অত্যন্ত স্পষ্টভাষী এবং সৎব্যক্তিত্ব। আবদুস সামাদ আজাদ, স্পীকার হুমায়ূন রশিদ চৌধুরী ,আব্দুজ জহুর এবং মরহুম আব্দুল হেকিম চৌধুরী ছিলেন তার একান্ত হিতাকাঙ্খী, বন্ধু ও সুহৃদ। ১৯৯৮ সালের ৭ই জানুয়ারি তিনি মৃত্যুবরণ করেন। #সুনামগঞ্জ_ডট_কম’র
পক্ষ থেকে মুক্তিযোদ্ধা জমির উদ্দিন আহমদ তালুকদারের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা।

(তথ্যসূত্রঃ জামালগঞ্জের ইতিহাস)

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৪৪৩ বার

[hupso]
Shares