সর্বশেষ

» জেগে আছি ।। আব্দুছ ছালাম চৌধুরী

প্রকাশিত: 21. June. 2020 | Sunday

জেগে আছি
আব্দুছ ছালাম চৌধুরী

একসময় সন্তানের জন্য বাবা জেগে থাকতেন। দু’হাতে আগলে রাখতেন। খাল,ডোবা নদী নালা পাড়ি দিতে কোলে তুলে নিতেন।
মনে পড়ে? আমার মনে পড়ে, তাই—-
জেগে আছি
হ্যেঁ হ্যেঁ আমি জেগে আছি।
আমি রাতের তৃতীয় প্রহরে আজ অনেক অসহায় বাবাদের কথা মনে করে জেগে আছি।
যারা,
বাবা দিবসের বিপক্ষে আছেন–
তারা থাকতে পারেন
তা, আপনার তথা আপনাদের ইচ্ছে।
আমি রাষ্ট্রের স্বীকৃত সকল দিবসের পক্ষে তা যদি ঘৃণা দিবসও হয়।
কারণ,,,,রাষ্ট্র মানুষের অভিভাবক।

অনেকের এই “বাবা দিবস কেনো” প্রশ্নের উত্তর খুজতে হলে চলে যেতে হবে প্রথম বিশ্ব যুদ্ধে
দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধে –
ইতিহাসের পাতায়।
পৃথিবীর প্রায় নব্বইটি দেশে এই বাবা দিবস পালন করা হয় ।

বাবা

বাবা মানেই এক বটবৃক্ষ
নিখাঁদ ভালোবাসা,
বাবা মানেই অতি আপন
নেই তাতে ধোঁয়াশা।

বাবা মানেই সেলেট পেন্সিলে
প্রথম বর্ণ লেখা,
বাবা মানেই সন্তানের সুখে
কেবলই স্বপ্ন দেখা।

বাবা মানেই কঠিন শাসন
পথ চলার সিঁড়ি,
বাবা মানেই নিঃস্বার্থ প্রেম
চাই না বাড়ি গাড়ি।

বাবা মানেই বিশ্ব জয়
ঠোঁট ভরা হাসি,
বাবা মানেই সোনালি অধ্যায়
যতই জলে ভাসি।

বাবা নেই কিছুই নেই
নেই চোখে আলো,
ভালো থাকো ওগো বাবা
আমরা বাসি ভালো।

আমিও মুসলমান —
আমিও রাব্বির হামহুমা কামা রাব্বা ইয়ানী ছগিরা পড়ি–
প্রতিবার নামাজ শেষে হাত তুলে পড়ি–
চব্বিশ ঘন্টায় নূন্যতম পাঁচ বার পড়ি।
এই পাঠান্ত যদি অনুধাবণ করেন,তাহলে বুঝতে পারবেন কেনো দিবস পালন করা হয়। এবং কেনো পড়ার নির্দেশ তারও উত্তর পেয়ে যাবেন।
আমি বলবো —
ভাবতে পারেন, এখানে কেনো ধর্মীয় নীতিমালায়’ই স্বীকৃতি দেওয়া হলো?

ভালো করে ভাবতে হবে,কেনো, রাষ্ট্র ও তা অনুস্মরণ করছে।একটু গভীর ভাবে অনুধাবণ করতে হবে। কেনো এই বাবা দিবস রাষ্ট্রীয় স্বীকৃত
রাষ্ট্রের দৃষ্টি তখনই যায়,যখন অবিচার আর অবহেলা মানুষ থাকে।
আমি বাবা দিবসকে পূর্ণ সমর্থন করি।
কারণ এতে করে অনেক অবহেলিত বাবাকে স্মরণ করা হয়।

যারা করবেন না,
আমার দৃষ্টিতে তারা সত্য জানতে আগ্রহী নয়, মানতেও আগ্রহী নয়। আর পৃথিবীতে অনেকেই অনেক কিছু মানে না। তবুও দিবস থেমে থাকে না।
বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা সকাল বাবাদের প্রতি।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ২৫৬ বার

[hupso]
Shares