সর্বশেষ

» জামালগঞ্জে তৃতীয় দফায় বন্যার আশঙ্কা, জনমনে আতঙ্ক

প্রকাশিত: 20. July. 2020 | Monday

 

জামালগঞ্জ প্রতিনিধি :: ভারতের মেঘালয়ে ভারী বৃষ্টিপাত ও পাহাড়ী ঢলে আবারও সুনামগঞ্জে সুরমা নদীর পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। এতে বন্যা কবলিত জামালগঞ্জ উপজেলার জনমনে তৃতীয় দফায় বন্যার কবলে পরার আতঙ্ক বিরাজ করছে।

গত জুন মাসের শেষের দিকে জামালগঞ্জে প্রথম দফায় বন্যা হয়। এতে অনেকের বসতঘরে পানিতে প্রবেশ করে এবং অনেক ক্ষয়-ক্ষতি হয়। প্রথম দফার বন্যার ক্ষতি পুরন হতে না হতেই জুলাই মাসের শেষের দিকে আবার দ্বিতীয় দফায় বন্যার কবলে পরতে হয় উপজেলাবাসীর। এতে বন্যার কড়াল গ্রাসে পানিবন্দী হয়ে হাত-পা গুটিয়ে কর্মহীন হয়ে পড়েছে হাওড় অঞ্চলের অনেক মানুষ। বিভিন্ন হাটবাজার পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় পানিবন্ধী লোকজন তাদের নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যসামগ্রী ক্রয় করতে না পেরে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। এ পর্যন্ত অনেকের ঘর-বাড়িতে পানি প্রবেশ করায় বিভিন্ন আশ্রয় কেন্দ্র এবং আত্মীয়ের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন অনেক মানুষ। কাচা ও পাকা রাস্তা পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের লোকজন নৌকা দিয়ে চলাচল করছেন।

খোজ নিয়ে দেখা যায়, বিগত চারদিনে পানি কিছুটা কমলেও রবিবার বিকাল থেকে নদী ও হাওড়ের পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং থেমে থেমে ভারী বৃষ্টিপাত হচ্ছে। তাছাড়া গত ২৪ ঘন্টায় সুনামগঞ্জে ১৯০ মি.মি বৃষ্টিপাত হয়েছে। এতে পানি বৃদ্ধির কারনে তৃতীয় দফায় বন্যার আশঙ্কা করছেন অনেকেই।

সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের সূত্রে জানাগেছে, বন্যা সতর্কীকরণ কেন্দ্র ২০শে জুলাইয়ের পর উত্তরপূর্বাঞ্চলে আবারও বন্যার আশঙ্কা করে পূর্বাভাস দিয়েছিল। এতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আগ থেকেই প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছেন।

ইতিমধ্যে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন এবং বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন আশ্রয় কেন্দ্রে এবং বন্যা কবলিত বিভিন্ন গ্রামে পানিবন্দী মানুষের কাছে শুকনো খাবার, বিশুদ্ধ পানি ও ত্রান বিতরন করা হয়েছে। কিন্তু বন্যায় বরাদ্ধকৃত ত্রাণসামগ্রী পর্যাপ্ত পরিমানে না থাকায় অনেক পানিবন্ধী লোকজনের কাছে পৌঁছায়নি ত্রান সহায়তা। এতে ত্রাণের জন্য অপেক্ষার প্রহর গুনছেন অনেক বানভাসি। চরম দূর্ভোগে পড়েছে হাওড়জনপদ। জরুরী ভিত্তিতে বন্যা কবলিত এলাকার সংকট দূরিকরনে ত্রাণসামগ্রী বরাদ্দের পরিমান বাড়ানো ও প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন জনপ্রতিনিধিরা।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ১০৮ বার

[hupso]
Shares